নয়াদিল্লীতে বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন শুরু কাল

ভারতের নয়াদিল্লীতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এবং ভারতের বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ) এর মধ্যে মহাপরিচালক পর্যায়ে ৫ দিন ব্যাপী সীমান্ত সম্মেলন শুরু আগামীকাল।
এ সম্মেলন আগামী ২৯ ডিসেম্বর ‘যৌথ আলোচনার দলিল’ স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে শেষ হবে। সম্মেলন শেষে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল আগামী ৩০ ডিসেম্বর দেশে ফিরবেন বলে বিজিবি’র এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ১১ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন। বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে বিজিবি’র উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশি¬ষ্ট কর্মকর্তারা অংশ গ্রহণ করবেন।
অপরদিকে বিএসএফ মহাপরিচালক ভিভেক জোহরীর নেতৃত্বে ১৯ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধিদল সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন। প্রতিনিধিদলে বিএসএফ সদর দপ্তরের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ, ফ্রন্টিয়ার আইজিগণ এবং ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লি¬ষ্ট কর্মকর্তাগণ থাকবেন।
সীমান্ত সম্মেলন উপলক্ষে উভয় দেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর মধ্যে বিদ্যমান সুসম্পর্ক আরও সুসংহত করতে বিজিবি পরিচালিত সীমান্ত পরিবার কল্যাণ সমিতির সভানেত্রী সোমা ইসলামের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের প্রতিনিধিদল ভারতে যাচ্ছেন। তারা বিএসএফ পরিচালিত বিএসএফ ওয়াইভ্স ওয়েলফেয়ার এ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিদলের সঙ্গেও পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লি¬ষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন এবং এ্যাসোসিয়েশনের বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিদর্শন করবেন।
সীমান্ত সম্মেলনের প্রথম দিনে নয়া দিল্ল¬ীস্থ বিএসএফের চাওলা ক্যাম্পে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক বৈঠক শুরু হবে। এবারের সম্মেলনে সীমান্তে নিরস্ত্র বাংলাদেশী নাগরিকদের ওপর গুলি চালানো ও আহত অথবা হত্যা করা সম্পর্কে প্রতিবাদ জানানো এবং এধরনের কর্মকান্ড বন্ধে করনীয় সম্পর্কে আলোচনা করা হবে।
সীমান্তে ইয়াবা পাচার, ফেনসিডিল, মদ, গাঁজা, হেরোইন, এবং ভায়াগ্রা ও সেনেগ্রসহ বিভিন্ন ধরনের অবৈধ মাদকদ্রব্যের চোরাচালান বন্ধ্যেও আলোচনা হবে।
এছাড়া ভারতের অভ্যন্তরে ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন নেশাজাতীয় দ্রব্য অথবা মাদকদ্রব্যের কারখানা অথবা গুদাম এবং মাদকের চোরাচালান রোধ, মাদক পাচারকারীদের সম্পর্কিত তথ্য বিনিময়, অস্ত্র ও গোলাবারুদ চোরাচালান রোধ, সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ রোধ, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা এবং সীমান্ত সম্পর্কিত সমস্যা দ্রুত সমাধানের জন্য ‘কার্যকর সমন্বিত সীমান্ত ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন এবং বাংলাদেশের সীমান্ত সড়ক নির্মাণ সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা করা হবে।
সফরকালে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারে মো. সাফিনুল ইসলাম ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন।
সীমান্ত সম্মেলন উপলক্ষে আগামী ২৭ ডিসেম্বর চাওলা ক্যাম্প স্টেডিয়ামে বিজিবি ও বিএসএফ ভলিবল টিমের মধ্যে ‘মৈত্রী কাপ টুর্নামেন্ট (ভলিবল)’ অনুষ্ঠিত হবে। ২৯ ডিসেম্বর সীমান্ত সম্মেলনের ‘যৌথ আলোচনার দলিল’ স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম সমাপ্ত হবে। বাসস।