ওয়ালটনের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং হচ্ছে: প্রবাসীকল্যাণ সচিব

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেছেন, বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ উন্নয়নের বিস্ময়। আর বাংলাদেশ কীভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তার চমৎকার উদাহরণ ওয়ালটন। ওয়ালটন কারখানায় এসে আমরা অভিভূত। কারখানার পরিবেশ-পরিচ্ছন্নতা, পণ্যের কোয়ালিটির নিশ্চয়তা সবকিছুই আন্তর্জাতিকমানের। সত্যি কথা বলতে ওয়ালটন ‘স্টেট অব দ্য আর্ট ইন্ডাস্ট্রি’। ওয়ালটনের মতো প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং হচ্ছে। ওয়ালটনে এসে আমাদের মনে হচ্ছে এটি আসলেই গর্ব করার মতো প্রতিষ্ঠান।শনিবার (৫ ডিসেম্বর ২০২০) গাজীপুরের চন্দ্রায় বাংলাদেশি ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন প্রবাসীকল্যাণ সচিব।

ওয়ালটন কারখানায় প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ জাবির ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা

এর আগে সকালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ১২তম ব্যাচের ২২ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শনে যান। প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছিলেন বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তা, শিক্ষক ও ব্যবসায়ী। অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মাহমুদ মেনন খান। অতিথিরা কারখানা কমপ্লেক্সে পৌঁছালে তাদের ফুল দিয়ে স্বাগত জানান ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর নজরুল ইসলাম সরকার।

বিশ্বমানের ওয়ালটন রেফ্রিজারেটর তৈরির প্রক্রিয়া দেখছেন অতিথিরা

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর আলমগীর আলম সরকার, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এস এম জাহিদ হাসান, হুমায়ূন কবীর, ইউসুফ আলী, কর্নেল (অব.) এস এম শাহাদাত আলম, আমিন খান, ফিরোজ আলম ও ইয়াসির আল ইমরান, সিনিয়র ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শাহজাদা সেলিম প্রমুখ।

কারখানা প্রাঙ্গণে পৌঁছে অতিথিরা প্রথমে ওয়ালটনের ওয়ালটনের সুসজ্জিত প্রোডাক্ট ডিসপ্লে সেন্টার ঘুরে দেখেন। এরপর পর্যায়ক্রমে তারা আন্তর্জাতিকমানের অত্যাধুনিক প্রযুক্তির রেফ্রিজারেটর উৎপাদন প্রক্রিয়া, কম্প্রেসর, এয়ার কন্ডিশনার, টেলিভিশন ও লিফট উৎপাদন কারখানা ঘুরে দেখেন।